Clear windows command prompt

  • CTRL+L is pressed  or
  • write cls to the console and then hit ENTER
Advertisements

Regular Expression

A regular expression is a system used in programming for pattern matching. 
It could be used to text search and replacing. 

/./ Matche each and every single character

/\d+/ Matche any kind of digit one or more

/\w/ Matche anything a-z, 0-9, _

/\s/ Matche every space

/[a-z]+[3-9]+/ Character Set for matching
	example:
		coal547
		goal254		
		Boal
		Poal

/(\.in)?/ Basically it's for optional. Question mark to check whether 
it is or not of the preceding token


Look Around:
------------
? mark is not going to include in the result
= sign is going to match
! sign is not going to match

	example: Lookbehind
		price is $500
		price is €600
		(?<![$])(?<=€)\d+	
		(?<=€)   Positive Lookbehind
		(?<![$]) Negative Lookbehind
	
	example: Lookahead	
		sharthak.com
		harpikpandy.ru
		[a-z]+(?=\.com)
		(?=\.com) Positive Lookahead
		[a-z]{11}(?!\.com)
		(?!\.com) Negative Lookahead


Anchors:
--------
/com$/    $ match at last of the line
/^com/    ^ match at starting point of the line
/com\b/   b/ boundary of the line. it's serach for starting and the end

	example:
		google.com
		com.googula.name


রিফ্রেশমেন্ট হিসেবে ফেসবুকে ঢুকি

দুই-তিন ঘণ্টা টানা পড়াশোনা করার পর রিওয়ার্ড বা রিফ্রেশমেন্ট হিসেবে ফেসবুকে ঢুকি। ফেসবুকে আসলে কী থাকে? কে বিয়ে করল, কে বিরিয়ানি রান্না করল, কে বেড়াতে গেল, কার ছবিতে কে কি কমেন্ট করলো, সেই সব পোস্ট আর ছবি। এই যে, আমাদের মস্তিষ্ক এতক্ষণ ধরে যে পড়াশোনা করেছে সেটা ঘুমের মাধ্যমে মস্তিষ্কে স্মৃতিতে জমা হয়। কিন্তু ঘুমানোর আগে এই যে, কে হানিমুন করল, কার বাচ্চা হলো বা কে কক্সবাজারের ছবি দিল, এই সব দেখে ঘুমাতে গেলে মস্তিষ্ক শেষ এবং ঘুমের ঠিক আগের কার্যক্রমগুলো সারা রাত ঘুমের মধ্যে প্রসেস করে বা স্টোর করে। পরদিন যদি পরীক্ষা থাকে তাতে আমরা এ রকম অনুভব করি যে, ধুর গতকাল রাতেই না পড়লাম, এখন মনে পড়ছে না কেন? নিজেরা হীনমন্যতায় ভাবতে থাকি আমার স্মৃতি খুব খারাপ কিছুই মনে থাকে না। কিন্তু আসলে তা নয়। তাহলে মিতা রিতার বিয়েতে কী রঙের লেহেঙ্গা পড়েছিল, সেই স্কুলে ছোটবেলায় বন্ধুদের সঙ্গে কী করেছেন সেটা কীভাবে মনে থাকে?

পড়াশোনার সঙ্গে কল্পনা বা ইমাজিনেশনের সংযোগ থাকলে পরবর্তীতে মনে রাখা সহজ। এ জন্যই গ্রুপ স্টাডিতে মনে রাখা সহজ একা একা দরজা বন্ধ করে পড়ার থেকে। মস্তিষ্ক ও স্মৃতিশক্তির কার্যক্ষমতাকে বাড়াতে ও ঠিকঠাক ধরে রাখতে খুব ভালো ফ্রেশ ঘুম দিয়ে উঠলে যেরকম ভালো অনুভূতি হয়, সেটা রাত তিনটা অবধি জেগে থেকে কখনো হতে পারে না। এ জন্যই গুরুজনরা বলেছেন: early to bed and early to rise makes a man healthy wealthy and wise

অন্ধকার ঘরের মোবাইলের নীল আলো যেটা মেলাটনিন হরমোনের সঙ্গে মস্তিষ্ককে দিনের আলোর মতো অনুভূতি দেয়। যে কারণে কাগজের বই পড়তে গেলেই ঘুম আসে, ক্লান্ত লাগে। কিন্তু মোবাইলের নীল আলোতে সারা রাত স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে কোনো কিছু পড়লে বা দেখলে ঘুম আসে না। বরং ঘুম পালিয়ে যায়।

ফেসবুকে কে চাকরি পেল সেই পোস্ট থাকলেও, কে ফেল করল সেই পোস্ট থাকে না। জামাই বউয়ের হানিমুনের রোমান্টিক ছবি থাকে। কিন্তু কতবার ঝগড়া করে সেই ছবি থাকে না। এতে নিজদের ভেতর একটা দুঃখ অনুভূত হতে থাকে। যে সবাই কত কী করে, কত জায়গায় বেড়াতে যায়, কত কী খায়, কিন্তু আমার লাইফ কত বোরিং। কিন্তু বাস্তবতা হলো, যিনি খুব একটা সুখী সুখী ইমেজ ফেসবুকে দিয়ে রাখেন, তিনি হয়তো খুব ভালো অভিনয় করেন। আসলে তিনি সুখী না, বরং আপনি অনেক ভালো আছেন। যাই হোক, এ রকম একটা দুঃখী দুঃখী অনুভূতি বা মন খারাপ ঘুমের জন্য সুখকর নয়। ফলে ঘুমের আগে মস্তিষ্ক অবচেতনে ইনার চ্যাট শুরু করে নিজের চাওয়া পাওয়া নিয়ে।

স্মার্টফোনের ইতিবাচক সব দিক আমরা সবাই জানি। নেতিবাচক দিকগুলো বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই অগ্রাহ্য করি। এভাবে আমাদের এনার্জি, মনোযোগ, সময়, স্মৃতি, মনে রাখার ক্ষমতা সব বিচ্ছিন্ন বিক্ষিপ্ত ক্লান্ত হয়ে আমাদের কার্যকারিতা বা প্রোডাকটিভিটি কমে যাচ্ছে।

শিশুদের মানুষিক বিকাশে এর যেমন নেতিবাচক প্রভাব ফেলে তেমনি বড়দের জীবনে এই নেশা সিগারেট বা আফিমের থেকে ক্ষতি কম নয়।

উৎস: প্রথম আলো

Git Problem Face

<!-- git error: failed to push some refs to --> 

git pull --rebase origin master
git push origin master

<!-- ============================================= -->

<!-- git error: -->
Another git process seems to be running in this repository, e.g.
an editor opened by 'git commit'. Please make sure all processes
are terminated then try again. If it still fails, a git process
may have crashed in this repository earlier:
remove the file manually to continue.

<!-- solve: -->
Try deleting index.lock file in your .git directory.

rm -f .git/index.lock


<!--Merge conflicts resolving:-->
git push -f origin master.


জীবনসঙ্গী নির্বাচনের ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলো চিন্তা করা উচিত

‘দোস্ত, মেয়েটার কণ্ঠ যে কি জোশ! জাস্ট ওয়াও!! ….. মনে হয় এই কন্ঠ শুনেই আমি সারাটা জনম কাটিয়ে দিতে পারবো……’

‘আরে শোন, তুই জানিস না। মেয়েটা দেখতে এত্তো সুন্দরী যে, ওর দিকে অপলক তাকিয়ে থেকে আমি আমার জীবন পার করে দিতে পারবো।’

জীবনে যেসব বন্ধুদের কাছে এরকম মধুমাখা, আতিশয্যে ভরা, অতি মাত্রায় আবেগী কথাবার্তা শুনেছি, তাদেরকে বলেছি- কারো সুন্দর কন্ঠই যদি তোর জীবনের সবকিছু হয়, তাহলে এক কাজ কর, কাস্টমার কেয়ার কিংবা এফ.এম রেডিও তে যারা জব করে, সেরকম কোন মেয়েকেই বিয়ে কর। বেশি কিছু তো আর চাওয়া নেই তোর। খালি মধুর কন্ঠ হলেই হয়।

দ্বিতীয়জনকে বলেছিলাম- চেহারার সৌন্দর্যই যদি তোর কাছে সব হয়, তাহলে ফ্যাশন শো করে বেড়ায় এরকম কাউকে বিয়ে করে ফেল। ব্যস! চেহারা দেখতে দেখতে ঘুমিয়ে যাবি, আবার ঘুম থেকে উঠেই চেহারা দেখতে বসে যাবি। আর তো কিছু চাই না।

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখলাম, যারাই ‘জোশ কন্ঠ’ আর ‘চাঁদের মতো দেখতে’ ক্রাইটেরিয়া প্রাধান্য দিয়ে বিয়ে করেছে, বিয়ের কিছুদিন পর তাদের সেই জোশ কন্ঠ ‘কর্কশ কন্ঠে’ এবং চাঁদমুখ ‘পেঁচামুখে’ পরিণত হতে খুব বেশিদিন লাগে না। এর কারণ কী? এর কারণ হলো আবেগ। আর আবেগ সর্বদা ক্ষণস্থায়ী। মোহ কেটে গেলে মনে হবে সব বিস্বাদ।

যারা বিয়ের আগে ‘প্রেম-ভালোবাসায়’ বিশ্বাসী, তারা তাদের প্রিয়তমার সেজেগুঁজে, খোপায় ফুল দেওয়া রূপটাই দেখে। সকালে ঘুম থেকে জাগার পরে তার পেত্নীর (কেউ আঘাত পেলে দুঃখিত) মতো রূপটা বিয়ের আগে দেখার তো বেচারার সৌভাগ্য হয় না। আবার, সেই প্রিয়তমারা তাদের প্রিয়তমদের জিন্স, শার্ট আর সানগ্লাসে মোড়ানো অবয়বের সাথেই পরিচিত। নিজের রুমটাকে গোয়ালঘর বানিয়ে রাখার অভ্যাসটা তো এরা দেখে বিয়ের পরেই। সুতরাং, বিয়ের পর যখন মোহ কেটে যায়, তখন আফসোস করে বলে,- ‘কি এক জাহানাম্মের ডিব্বায় আইসা পড়লাম রে….’

যারা এসব অবৈধ সম্পর্কের ধার ধারেনা, সুন্নাহ মেনে বিয়ে করে, তাদের কাছে তাদের প্রিয়তম বা প্রিয়তমার দুই রূপটাই নতুন। তাই কারো মধ্যে কোনরকম আফসোস কাজ করেনা। এখানে মোহ কেটে যাবার পরেও বাড়তি একটা জিনিস থেকে যায়। সেটা হলো- ভালোবাসা।

কাউকে বিয়ে করার জন্য তার মধ্যে দ্বীন দেখাটা অবশ্যই ফরজ। কিন্তু, শুধুমাত্র ‘দ্বীন’ দেখেই কাউকে হুট করে বিয়ে করে বসাটা আমার মতে ঠিক নয়। জীবনসঙ্গী নির্বাচনে দ্বীনের পরে আরো বেশকিছু জিনিস দেখতে হবে। এরমধ্যে যেটা সবার আগে সেটা হলো- সাইকোলজি। এই সাইকোলজি এমন একটা জিনিস, যেটার কম্বিনেশন না হলে পুরো বৈবাহিক জীবনে পস্তাতে হবে।

যায়েদ (রাঃ) এবং জয়নব (রাঃ) এর মধ্যকার বিয়ের কথাই চিন্তা করুন। তাদের মধ্যে কী দ্বীনদারির কোন অভাব ছিলো? তবুও কেনো তাদের ডিভোর্স হয়?

এরকম ইমম্যাচিউর (বয়সের দিক থেকে) প্র্যাকটিসিং আপুরা হুটহাট বিয়ের ডিসিশন নিয়ে ফেলেন। আগ-পিছ কিছু ভাবেন না। ফলাফল হয় কী, বিয়ের পরে এসে দেখে স্বামীর পরিবার, চারপাশের পরিবেশ, আর্থিক অবস্থার সাথে উনি মানিয়ে নিতে পারছেন না, অথবা মানিয়ে নিতে হিমশিম খাচ্ছেন। এক্ষেত্রে ধৈর্য্য ধরতে পারলে তো আলহামদুলিল্লাহ্‌, কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রে নতুন নতুন দ্বীন প্র্যাকটিস করা আপুরা এই ধাক্কাটা সামলে উঠতে পারেন না। ফলে, ভুল বুঝেন নিজের স্বামীকে। একটা পর্যায়ে গিয়ে ডিভোর্স চান। ফলাফল- দু দু’টো জীবন হতাশার মধ্যে ডুবে যাওয়া।

নতুন নতুন দ্বীনে আসা ভাইয়া এবং আপুদের বলবো, বিয়ের ক্ষেত্রে সময় নিন। চিন্তা করুন। নিজেকে প্রশ্ন করুন- আপনি যে পরিবেশে যাচ্ছেন, তার সাথে সমস্ত অবস্থায়, সমস্ত প্রতিকূলতায় মানিয়ে নিতে পারবেন কী? সবর করতে পারবেন কী? আপনি যে পারবেন, তা কি নিছক আপনার মুখের কথা না অন্তরের বিশ্বাস? আপনি আবার অন্য কারো জীবনকে ‘অনিশ্চিত’ গন্তব্যে ঠেলে দিচ্ছেন না তো?

সুখে থাকতে ভূতে কিলায়!

১. দেলোয়ার সাহেবের চলছিল ভালোই। বহুজাতিক কোম্পানির বড় চাকুরে। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে সুখের সংসার। অফিসের গাড়ি। সুন্দর ফ্ল্যাট। কোথাও কোনো খামতি নেই। কিন্তু তিনি চাইলেন তাড়াতাড়ি আরেকটু এগিয়ে যেতে। দু-একজন বন্ধুর পরামর্শে একটি ব্যবসায় কিছু টাকা লগ্নী করলেন। ছয় মাসের মাথায় আশাতীত লাভ। এরপর তিনি ব্যাংকের সমস্ত সঞ্চয় আর এর সঙ্গে অফিস থেকে বেশ কিছু টাকা অগ্রিম নিয়ে বড় অঙ্কের টাকা লগ্নী করলেন একই ব্যবসায়। কিন্তু এবার বিপদেই পড়ে গেলেন। পুরোটাই ক্ষতি। তার ওপর তিনি দেখলেন বন্ধুরা ব্যবসার কাগজপত্র বন্ধক নিয়ে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছিল, সেই ‘বন্ধু’রা এখন লাপাত্তা। অফিসের অগ্রিম শোধ আর ব্যাংকের দেনা মেটাতে গিয়ে তিনি প্রায় কপর্দকশূন্য। বিষণ্নতায় আক্রান্ত হয়ে নিজেকে সবকিছু থেকে গুটিয়ে নিয়েছেন, স্ত্রীর সঙ্গেও সারাক্ষণ খিটমিট লেগে থাকে।

২. সানিয়ার সমস্যাটা একটু অন্য রকম। বিয়ের বয়স ছয় বছর। স্বামী ব্যবসায়ী। বছর চারেকের একটি মেয়ে আছে তাঁদের। স্বামী-সন্তানের সঙ্গে দারুণ সম্পর্ক সানিয়ার। মাঝখানে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এক ছেলের সঙ্গে পরিচয় হলো সানিয়ার। সাধারণ কুশল বিনিময় দিয়ে শুরু। এরপর ছেলেটির সঙ্গে তিনি জড়িয়ে পড়লেন প্রেমের সম্পর্কে! স্বামী যখন বিষয়গুলো জানতে পারলেন, তা নিয়ে সংসারে কুরুক্ষেত্র। দুজনের বিচ্ছেদ হয় হয় প্রায়। সানিয়া দুই-দুবার ঘুমের ওষুধ খেয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলেন।

দেলোয়ার আর সানিয়ার মতো সমস্যা অনেকেরই হয়। সুখী জীবনে তাঁরা একঘেঁয়ে বোধ করেন। আরও সুখ, বৈচিত্র্যময় সুখের খোঁজে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন। শেষমেশ যেটুকু সুখ ছিল, তা-ও হারিয়ে ফেলেন তাঁরা।

সুখে থাকলেও বিভিন্ন কারণে মানুষের মনে অতৃপ্তি ভর করতে পারে। কখনো দেখা যায় চারপাশের নেতিবাচক মানুষেরা বুঝতেই দিচ্ছে না যে আপনি আসলে সুখে আছেন, শান্তিতে আছেন। তাঁরা আপনার ‘আছে’টাকে আড়াল করে ‘নাই’টুকুকে ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে বড় করে দেখান। এই নেতিবাচক চিন্তার মানুষদের কারণে আপনি মনে করতে পারেন, ‘আরে, আমি তো সুখী নই।’ তখন আরও সুখ খুঁজতে গিয়ে বিপত্তি দেখা দেয়। আবার কখনো নিজের প্রকৃত জীবনকে আরেকজনের ‘বিজ্ঞাপিত’ জীবনের সঙ্গে তুলনা করে কেউ কেউ সুখহীনতায় ভোগেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রত্যেকেই নিজের আলোকিত দিকটি তুলে ধরেন, সফলতার বয়ান করেন, হাস্যোজ্জ্বল ছবি দেন। সেগুলো দেখে একজন সুখী মানুষ (যাঁর জীবনে সফলতা-ব্যর্থতা দুই আছে) ভাবেন, ‘আহা! অন্যরা আমার চাইতে কত সুখে আছে।’ কারণ তিনি তো ওই বিজ্ঞাপিত তথাকথিত সুখী মানুষের ব্যর্থতাটা জানেন না। এ সময় তিনি সেই হঠকারী বিষয়ে যুক্ত হয়ে আরও সুখী হতে চান। দিন শেষে ‘অসুখ’ তাঁদের ঘিরে ধরে।

ব্যক্তিত্বের একটি ধরন আছে, যাকে বলা হয় ‘টাইপ-এ’। তাঁরা সহজে তৃপ্ত হন না, সবকিছুতেই সেরা, সবার আগে থাকার বাসনা তাঁদের সুখগুলোকে কেড়ে নেয়। কোনো কারণে যদি কেউ নিজেকে গুটিয়ে রাখেন, একা হয়ে যান, তখন তিনি বুঝতে পারেন না যে আসলেই সুখে আছেন। একধরনের অস্তিত্বের সংকটে ভোগেন, লক্ষ্য স্থির করতে পারেন না। সুখ নামক সোনার হরিণের পেছনে ছুটতে ছুটতে নিজের অর্জন করা সুখগুলো পথে-ঘাটে হারিয়ে ফেলেন।

সুখের সংজ্ঞা বুঝতে যখন অসুবিধা হয়, তখন তিনি সুখে থেকেও নিজের অন্তর্দৃষ্টির অভাবে অসুখী বোধ করতে থাকেন। কখনো কৌতূহলের বশে, একটু সাময়িক মজা পেতে ঝুঁকিপূর্ণ আচরণ করে ফেলেন, যা তাঁর সুখকে নষ্ট করে দেয়।

কারও মধ্যে সুখী হওয়ার সব উপাদান থাকার পরও যদি তাঁর আবেগ, সময় আর সম্পদের ওপর যথেষ্ট নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখতে না পারেন, তখন তিনি নিজেকে অসুখী মনে করেন। তাঁর আবেগের অস্বাভাবিক প্রকাশ ঘটে, সময়ের সদ্ব্যবহার করতে পারেন না আর সম্পদের অপচয় করেন। নিজেকে সুখী থেকে অসুখীতে পরিণত করে ফেলেন।

কোনো ধরনের হঠকারী সিদ্ধান্ত আর ঝুঁকিপূর্ণ আচরণ করে নিজের সুখটুকু নষ্ট করবেন না। আপনি যে সুখে আছেন, বিষয়টি বুঝতে পারাও একটা গুণ। এই গুণে গুণান্বিত হয়ে আপনি সুখে থাকুন, আশপাশের সবাইকেও সুখে রাখুন।

সুখের মধ্যে ‘ভূতের’ উপদ্রব থেকে কীভাবে রক্ষা পাবেন

১. নিজের লক্ষ্য স্থির রাখুন। ঘন ঘন জীবনের মোড় পরিবর্তন করার চেষ্টা করবেন না।

২. পরিবারকে সময় দিন। প্রিয়জনের সঙ্গে প্রতিদিন গুণগত সময় কাটান। পাশাপাশি প্রতিদিন একটু করে নিজেকে সময় দিন।

৩. আপনার আশপাশে যদি নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির মানুষ বেশি থাকে, তবে তাদের এড়িয়ে চলুন। মলিন, বিষাদময় আবেগাক্রান্ত মানুষের দ্বারা প্রভাবিত হবেন না।

৪. যে বিষয়টি সম্পর্কে আপনার স্বচ্ছ ধারণা নেই, সে বিষয়ে শ্রম বা অর্থ বিনিয়োগের আগে বিশদভাবে জানুন।

৫. আরেকজনের সুখের সঙ্গে নিজেকে কখনোই তুলনা করবেন না। আপনি হয়তো তার অসুখী জীবনের গল্পটাই জানেন না।

৬. একা থাকার অভ্যাস ছাড়ুন। উজ্জ্বল, প্রাণোচ্ছল মানুষের সান্নিধ্যে বেশি বেশি থাকার চেষ্টা করুন।

৭. নিজের ভেতরে যেসব গুণ আছে, আপনার জীবনের সেই মুক্তোদানাগুলো খুঁজে বের করুন। নিজের গুণের চর্চা করতে থাকুন।

৮. আত্মসমালোচনা করুন, কিন্তু কখনোই আত্মগ্লানিতে ভুগবেন না। মাথা উঁচু করে বাঁচুন। সততা আর নৈতিকতাকে জীবনে সুখী থাকার অন্যতম উপাদান হিসেবে যুক্ত করুন।

৯. খুব বেশি পেছনে ফিরে তাকাবেন না। মনে রাখবেন, আমাদের চোখ দুটো সামনে। সব সময় সামনের দিকে তাকাবেন। বর্তমানকে উপভোগ করবেন আর আগামী নিয়ে স্বপ্ন দেখবেন।

১০. সফলতার মতো ব্যর্থতাও যে জীবনের এক অনুসঙ্গ, তা বুঝতে শিখুন। ব্যর্থতাকে মেনে নেওয়ার চর্চা করুন।

১১. যেকোনো ধরনের ঝুঁকিপূর্ণ আচরণ (যেমন অযাচিত-অবাঞ্ছিত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়া, মাদকের নেশা, ফাটকা ব্যবসা, জুয়া ইত্যাদি) এড়িয়ে চলুন।

১২. শিশুদের ভালোবাসুন। আপনার সন্তানসহ সব শিশুকে ভালোবাসতে শিখলে সুখ আপনাকে ধরা দেবেই।

উৎস: প্রথম আলো

সুখী থাকার ১০টি সহজ উপায়

১. নেতিবাচক চিন্তা আর নয়
আগামীকাল পরীক্ষা আর আজ রাতে আপনার মনে ভিড় করল হাজারো দুশ্চিন্তা, যার অধিকাংশই নেতিবাচক। খুব সহজ ভাষায় এ ধরনের চিন্তা থেকে নিজেকে দূরে রাখুন। শুধু এমন চিন্তাই নয়, নেতিবাচক মানুষ এবং আলোচনা থেকেও সরে আসুন। কেননা, আপনার পরিধি নিজেই বুঝবেন, অন্যের কথায় সহজেই প্রভাবিত হওয়ার কিছু নেই।

২. নিজেকে অন্যের সঙ্গে তুলনা না করা
‘ওর ওটা আছে, আমার নেই কেন’—এ ধরনের চিন্তা আপনার নিজ মানসিক শক্তিকেই কমিয়ে দেয়। এমনকি দীর্ঘ মেয়াদে আপনার মধ্যে হতাশা কাজ করবে। তাই মনে রাখুন, সবার প্রতিভা এক নয়। কারও হয়তো পড়াশোনায় মেধা আছে, আবার কারও খেলাধুলায়। তাই চেষ্টা করুন নিজের প্রতিভাকে বিকশিত করার।

৩. ইতিবাচক থাকুন
আপনি কাজটা যেভাবে করবেন, তার ফলটাও সে রকমই হবে। এটা মাথায় রেখেই কাজে লেগে পড়ুন। শেষ বিকেলে কী হবে তার জন্য চিন্তা না করে নিজেকে আশ্বাস দিন। প্রতিটি ঘটনারই দুটি দিক থাকে—ইতিবাচক ও নেতিবাচক। চেষ্টা করুন সব সময় ইতিবাচক দিকগুলো খুঁজে বের করার। এর ভালো দিকটা আপনি নিজেই দেখতে পাবেন।

৪. ঠিকমতো খাবার ও ঘুম
শরীর ও মন একটি আরেকটির ওপর নির্ভরশীল। তাই একটি নির্দিষ্ট রুটিন অনুযায়ী চলার চেষ্টা করুন। যেমন পরিমিত পরিমাণে খাবার ও ঘুম। এ ছাড়া প্রতিদিন সকালে কিংবা সন্ধ্যায় শারীরিক ব্যায়াম বা ইয়োগা করতে পারেন। এতে দুশ্চিন্তা অনেকটাই লাঘব হয়।

৫. নিজেকে ভালোবাসুন
সবার আগে নিজেকে ভালোবাসতে শিখুন। সময় বরাদ্দ রাখুন কিছুটা নিজেরও জন্য। আপনার প্রিয় মানুষটি কাছে নেই? আপনি নিজেই ব্যস্ত হয়ে পড়ুন না! ঘুরে আসুন কোথাও কিংবা শখের বিষয়গুলো চর্চা করুন। কিংবা পরিবারের সবার জন্য কিছু একটা রান্না করে ফেলুন ঝটপট।

৬. পরিবার ও বন্ধুর সঙ্গে সময় উপভোগ
বন্ধুমহল কিংবা পরিবারের সঙ্গে সময় কাটান। তাদের সঙ্গে আলোচনা করুন। এতে দুই পক্ষই খুশি হবে। এমন অনেক ব্যাপার থাকে, যা আমরা প্রিয় মানুষটির চেয়ে বন্ধুটির কাছে প্রকাশ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি। তাই কিছুটা সময় বন্ধু মানুষটির সঙ্গে বেড়িয়ে আসুন।

৭. কিছু বিষয়কে যেতে দিন
সব কাজেই যে প্রথম হতে হবে এমন চিন্তা ঝেড়ে ফেলুন। প্রতিটা কাজেই সময় নিয়ে চিন্তা করুন এবং মনে করুন, ‘সামনে ভালো কিছু অপেক্ষা করছে।’

৮. কৃতজ্ঞ থাকুন
দিন শেষে যখন নীড়ে ফিরবেন, তখন চিন্তা করুন আপনি কতটা সফল। অনেকেই আছেন, ঠিক আপনার জীবনটাই পাওয়ার জন্য সংগ্রাম করে যাচ্ছেন।

৯. অন্যের প্রতি সহযোগিতা
অনেকেই পাশের মানুষের ব্যবহারে কষ্ট পেয়ে থাকেন। কিন্তু ভেবে দেখার চেষ্টা করুন, সেই মানুষটি কেন এমন করেছেন। সমানুভূতি থেকেই এমনটি করা সম্ভব। তাই সব সময় নিজের ব্যাপারগুলো না দেখে অন্যদের সমস্যাগুলোও বোঝার চেষ্টা করুন।

১০. আস্থা রাখুন নিজের ওপর
যত যাই হোক, নিজেকে বোঝার ক্ষমতা আপনারই আছে। সব নেতিবাচকতা এড়িয়ে নিজেকে অভয় দিন, ‘দিন শেষে আমিই জয়ী!’

উৎস: প্রথম আলো

কালিজিরার বৈশিষ্ট এবং এর স্বাস্থ্যগত গুনাগুন

ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা কালিজিরাকে একটি অব্যর্থ রোগ নিরাময়ের উপকরণ হিসাবে বিশ্বাস করে। এর সাথে একটি হাদিস জড়িত আছে। হাদিসটি হলো— ‘আয়েশা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহা থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি নবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি: “এ কালিজিরা সাম ব্যতীত সমস্ত রোগের নিরাময়। আমি বললাম: সাম কি? তিনি বললেন: মৃত্যু!” [বুখারী: ৫৬৮৭]

কালিজিরার অনন্যা উপকারগুলো নিচে দেওয়া হলোঃ-

(১) রোগ প্রতিরোধে কালোজিরা: কালোজিরা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। নিয়মিত কালোজিরা খেলে শরীরের প্রতিটি অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সতেজ থাকে। এটি যেকোনো জীবানুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে দেহকে প্রস্তুত করে তোলে এবং সার্বিকভাবে স্বাস্থ্যের উন্নতি করে।

(২) ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কালোজিরা: কালোজিরা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীদের রক্তের গ্লুকোজ কমিয়ে দেয়। ফলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে।

(৩) রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে কালোজিরা: কালোজিরা নিম্ন রক্তচাপ বৃদ্ধি করে স্বাভাবিক করতে সাহায্য করে। পাশাপাশি দেহের কলেস্টোরল নিয়ন্ত্রণ করে উচ্চ রক্তচাপ হ্রাস করে শরীরে রক্তচাপের স্বাভাবিক মাত্রা বজায় রাখে।

(৪) যৌনক্ষমতা বৃদ্ধি করে কালোজিরা: কালোজিরা নারী-পুরুষ উভয়ের যৌনক্ষমতা বৃদ্ধি করে। প্রতিদিন খাবারের সঙ্গে কালোজিরা খেলে পুরুষের স্পার্ম সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। এটি পুরুষত্বহীনতা থেকে মুক্তির সম্ভাবনাও তৈরি করে।

(৫) স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করে কালোজিরা: নিয়মিত কালোজিরা খেলে দেহে রক্ত সঞ্চালন ঠিকমতো হয়। এতে করে মস্তিস্কে রক্ত সঞ্চালনের বৃদ্ধি ঘটে; যা আমাদের স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

(৬) হাঁপানী রোগ উপশমে কালোজিরা: হাঁপানী বা শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা সমাধানে কালোজিরা দারুণ কাজ করে। প্রতিদিন কালোজিরার ভর্তা খেলে হাঁপানি বা শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা উপশম হয়।

(৭) পিঠে ব্যাথা দূর করে কালোজিরা: কালোজিরার থেকে তৈরি তেল আমাদের দেহে বাসা বাঁধা দীর্ঘমেয়াদী রিউমেটিক এবং পিঠে ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে। এছাড়া সাধারণভাবে কালোজিরা খেলেও অনেক উপকার পাওয়া যায়।

(৮) শিশুর দৈহিক ও মানসিক বৃদ্ধিতে কালোজিরা: নিয়মিত কালোজিরা খাওয়ালে দ্রুত শিশুর দৈহিক ও মানসিক বৃদ্ধি ঘটে। কালোজিরা শিশুর মস্তিষ্কের সুস্থতা এবং স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতেও অনেক কাজ করে।

(৯) চুলপড়া, মাথাব্যথা, অনিদ্রা, মাথা ঝিমঝিম করা, মুখশ্রী ও সৌন্দর্য রক্ষা, অবসন্নতা-দুর্বলতা, নিষ্কিয়তা ও অলসতা, আহারে অরুচি, মস্তিষ্কশক্তি তথা স্মরণশক্তি বাড়াতেও কালোজিরা উপযোগী।

(১০) চায়ের সাথে নিয়মিত কালোজিরা মিশিয়ে অথবা এর তেল বা আরক মিশিয়ে পান করলে হৃদরোগে যেমন উপকার হয়, তেমনি মেদ ও বিগলিত হয়।

(১১) মাথা ব্যথায় কপালে উভয় চিবুকে ও কানের পার্শ্ববর্তি স্থানে দৈনিক ৩/৪ বার কালোজিরা তেল মালিশ করলে উপকার পাওয়া যায়।

(১২) কফির সাথে কালোজিরা সেবনে স্নায়ুবিক উত্তেজনা দুরীভুত হয়।

(১৩) জ্বর, কফ, গায়ের ব্যথা দূর করার জন্য কালিজিরা যথেষ্ট উপকারী বন্ধু। এতে রয়েছে ক্ষুধা বাড়ানোর উপাদান। পেটের যাবতীয় রোগ-জীবাণু ও গ্যাস দূর করে ক্ষুধা বাড়ায়।

(১৪) কালিজিরায় রয়েছে অ্যান্টিমাইক্রোরিয়াল এজেন্ট, অর্থাৎ শরীরের রোগ-জীবাণু ধ্বংসকারী উপাদান। এই উপাদানের জন্য -শরীরে সহজে ঘা, ফোড়া, সংক্রামক রোগ (ছোঁয়াচে রোগ) হয় না।

(১৫) সন্তান প্রসবের পর কাঁচা কালিজিরা পিষে খেলে শিশু দুধ খেতে পাবে বেশি পরিমাণে।

(১৬) মধুসহ প্রতিদিন সকালে কালোজিরা সেবনে স্বাস্থ্য ভালো থাকে ও সকল রোগ মহামারী হতে রক্ষা পাওয়া যায়।

(১৭) দাঁতে ব্যথা হলে কুসুম গরম পানিতে কালিজিরা দিয়ে কুলি করলে ব্যথা কমে; জিহ্বা, তালু, দাঁতের মাড়ির জীবাণু মরে।

(১৮) কালিজিরা কৃমি দূর করার জন্য কাজ করে।

(১৯) দেহের কাটা-ছেঁড়া শুকানোর জন্য কাজ করে।

(২০) নারীর ঋতুস্রাবজনীত সমস্যায় কালিজিরা বাটা খেলে উপকার পাওয়া যায়।

(২১) কালোজিরার যথাযথ ব্যবহারে দৈনন্দিন জীবনে বাড়তি শক্তি অজির্ত হয়। এর তেল ব্যবহারে রাতভর প্রশান্তিপর্ন নিদ্রা হয়।

(২২) প্রস্রাব বৃদ্ধির জন্য কালিজিরা খাওয়া হয়।

(২৩) কালোজিরা যৌন ব্যাধি ও স্নায়ুবিক দুর্বলতায় আক্রান্ত রোগীদের জন্য অতি উতকৃষ্ট ঔষধ।

ভারতীয় ভিসা আবেদন অভিজ্ঞতা

কীভাবে শুরু করবেন?
প্রথমেই চলে যান এই লিংকে ক্লিক করার পরপরই একটা পেজ পেয়ে যাবেন। সেখানে ইন্ডিয়ান মিশন “Bangladesh-Dhaka” সিলেক্ট করেন, মেইল আইডি দেন তারপর কোন কারণে যেতে চাচ্ছেন সিলেক্ট করে “Continue” বাটনে ক্লিক করে দেন। (ঢাকাই সিলেক্ট করতে হবে এমন কোন কথা নাই, যার যেই মিশন কাছে সেইটা সিলেক্ট করতে পারেন, আমি ঢাকায় থাকি বলে ঢাকা করলাম)। মেইল আইডিটা দেখেন, সব ক্যাপিটাল লেটারে। এই পুরা ভিসা ফর্মে আপনি ইংরেজীতে যা-ই লিখেন সব অটোমেটিক ক্যাপিটাল ফর্মে চলে যাবে। চিন্তার কোন কারণ নাই। “Expected Date of Arrival” এই ঘরে এক মাস পরের (যেদিন ভিসা অ্যাপ্লিকেশন করলেন সেদিন থেকে) যে কোন একটি তারিখ দিয়ে দেন।

কন্টিনিউ ক্লিক করার সাথে সাথেই নিচের মত একটা ছবি পাবেন যেখানে একটা টেম্পোরারি আইডি আপনাকে প্রোভাইড করা হবে। এই টেম্পোরারি আইডিটা কপি করে রাখেন (ধরেন ফর্ম পূরণ করতে করতে হঠাৎ আপনার বাসায় লোডশেডিং হইল, অথবা ইন্টারনেট কানেকশন চলে গেল তাহলে আপনি এই টেম্পোরারি আইডি এই পেজে গিয়ে দিলেই যেখানে শেষ করছেন সেখান থেকেই শুরু করতে পারবেন, আবার প্রথম থেকে শুরু করা লাগবে না)।

এখন আসা যাক ফর্ম পূরণে। উপরের পেজে দেখেন ‘Surname’ আর ‘Given Name’ নামে দুইটা অপশন আছে। অনেকেই হাউ মাউ খাউ খাউ করেন যে, কোনটা দিবেন সার নেম আর কোনটা লিখবেন গিভেন নেম। আসেন সমস্যার সমাধান করি। আপনার পাসপোর্ট খানা হাতে নেন এরপর দেখেন খুব সুন্দর করে জিনিসগুলা লেখা আছে। (বলতে ভুলে গেছি, Visible Identification Mark এর ঘরে ‘NONE’ লিখে দিবেন; তবে যদি আপনার মুখে কাটা দাগ থাকে তাহলে ‘স্কার’ লিখে দিতে পারেন।)

আরেকটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, আপনার সিটিজেনশিপ নং/ন্যাশনাল আইডি। কোনটা দিবেন? প্রথমে দেখেন আপনার পাসপোর্ট এর ব্যক্তিগত নং এ কোন নাম্বারটা দেয়া আছে। ন্যাশনাল আইডি নাম্বার নাকি জন্মসনদের নাম্বার। এই নাম্বারটা ভিসা অ্যাপ্লিকেশনে হুবহু লিখে নেন। পরে যখন কাগজ সাবমিট করতে যাবেন তখন এই নম্বরের কপিটাই আপনাকে দিতে হবে। যদি সেটা ন্যশনাল আইডির নম্বর হয় তবে ন্যশনাল আইডির ফটোকপি দিবেন, আর জন্মসনদ হলে জন্মসনদের ফটোকপি দিবেন। (এটা কিন্ত ইম্পরট্যান্ট পার্ট, আপনার পাসপোর্টে আছে জন্মসনদের নাম্বার, কিন্ত আপনি ফিজিকালি ভিসা অ্যাপ্লিকেশন সাবমিট করার সময় দিলেন ন্যাশনাল আইডির ফটোকপি- তাহলে কিন্ত আপনার ফর্মই ওরা নিবে না।)

বাকি ডিটেইলস নরমালি পূরণ করেন। অযথা তাড়াহুড়া করবেন না, পাসপোর্ট দেখে দেখে ইনফরমেশন গুলো লেখেন, মুখস্থ লেখার দরকার নাই। সেদিন আমাদের সাথেই এক ভাইয়া তার কাগজে পাসপোর্ট ইস্যুর তারিখ ২২ সেপ্টেম্বর এর জায়গায় ২৩ সেপ্টেম্বর লিখার কারণে তার ফর্ম কাটাকুটি করে ফিরিয়ে দিয়েছে। পাসপোর্ট কোথা থেকে ইস্যু করছেন সেইটা পাসপোর্ট এর ইনফরমেশন পেজেই লেখা আছে। অনেকে বুদ্ধি করে ’আগারগাঁও’ লিখেন এবং অযথা ধরা খান। অথচ পাসপোর্টে স্পষ্ট করেই লেখা থাকে ‘Issue from: DIP/Dhaka’; সুতরাং আপনি লিখবেন শুধু ‘Dhaka’।

এখন একটার পরে একটা ইনফরমেশন দিয়ে কন্টিনিউ করেন। পরের পেজ এসে যাবে। এই পার্টটা খুব খুব ইম্পরট্যান্ট কারণ বেশির ভাগের ভিসা রিজেক্ট হয় এই অংশে ভুল ইনফো দেয়ার কারণে।

এই অংশ পূরণের আগে আপনি যে বাসায় থাকেন সেই বাসার একটা বিদ্যুল বিল বা আপনার টেলিফোন বিল জোগাড় করেন। যদি একটাও হাতের কাছে না থাকে তাহলে বাসার বাড়িওয়ালার কাছে যেয়ে কাঁদো কাঁদো গলায় বলেন, আংকেল একটা বিল দশ মিনিটের জন্য দেন। যদি বাড়িওয়ালাও বাসায় না থাকে তাহলে খালা-মামা-ফুফু-গার্লফ্রেন্ড যে কারো বাসার বিল জোগাড় করেন। (বিলের ফটোকপি জমা দিতে হবে, স্পষ্ট ফটোকপি না হলে এরা ঘ্যানঘ্যান করে, মাঝে মধ্যে মেইন কপিও রেখে দেয় তাই একটু কষ্ট করে স্পষ্ট ফটোকপি করাবেন)।

বিলের উপর যে ঠিকানাটুকু পাবেন হুবুহু, তা প্রেজেন্ট অ্যাড্রেসে লিখে ফেলেন। আবার বলছি প্রেজেন্ট অ্যাড্রেসের ঘরে পাসপোর্ট এর প্রেজেন্ট অ্যাড্রেস লিখবেন না। যে বিলের কপি আপনার কাছে আছে (সেটা যার-ই হোক) সেটা দেখে হুবহু লিখবেন, কিছু বাদও দিবেন না, কিছু বাড়াবেনও না। আর পার্মানেন্ট অ্যাড্রেস লিখে ফেলেন আপনার পাসপোর্ট দেখে দেখে। এইখানেও সেই একই কথা, যা আছে তা-ই লিখবেন। বাড়াবেনও না, কমাবেনও না।

এবার ঠিক নিচেই পাবেন ফ্যামিলি ডিটেইলস এর ঘর, এই ঘরে ‘Previous Nationality’ নামের একটা ব্যাপার আছে। ঘরটা পূরণ করা ম্যান্ডাটরি না, এই কারণে অনেকে পূরণ করেন না। কিন্ত আপনি অবশ্যই করবেন এবং ওই ঘরে ‘বাংলাদেশি’ সিলেক্ট করে দিবেন।

ব্যাস এভাবে একের পর এক ইনফরমেশন দিয়ে চলে যান পরের পেজে। এর পরের পেজে আপনার দুইটা রেফারেন্স নম্বর চাইবে। একটা ইন্ডিয়ান, একটা দেশি। দেশি যাকে ইচ্ছা তাকে রেফারেন্স দেন, আর বিদেশের জন্য ইন্ডিয়ান যে কোন একটা হোটেলের অ্যাড্রেস আর ফোন নাম্বার কপি করে দিয়ে দেন (গুগলে সার্চ দিলেই পাবেন)।

হাতের কাছে আপনার ছবির একটা সফট কপি রাখেন (২/২ হতে হবে, যে কোন স্টুডিও তে যেয়ে বলবেন ভিসা করব তাই ছবির হার্ড কপির সাথে সফট কপিও লাগবে)। ছবি অবশ্যই সাদা ব্যাকগ্রাউন্ডে হতে হবে। ঝাপসা ছবি দিবেন না, একদম ল্যাব প্রিন্ট। অনেকে ছবি থেকে ছবি করান কম দামে, সে ছবি ঝাপসা হয়, ওই ছবি দিবেন না। ছবিতে চশমা পড়া থাকতে পারবেন না। ছবি আপলোড করার পর দেখবেন ‘Form Print’ এর একটা বাটন আসবে। বাটনে ক্লিক করার পরেই আপনার ফর্ম ডাউনলোড হয়ে যাবে। এইবার সেই ফর্ম একটা কালার প্রিন্ট করে নেন।

এবার আসা যাক এন্ডোর্সমেন্টে। মতিঝিলের যে কোন ব্যাংকে ১২-১৩ হাজার টাকা নিয়ে চলে যান। বলেন আপনি ডলার করবেন। ওনারা সেটা ডলার করে আপনার পাসপোর্ট এর পিছনে সিল মেরে দিবে আর সাথে একটা কাগজ দিয়ে দিবে। ফি নেবে ৩০০-৩৪৫ টাকা। নূন্যতম ১৫০ ডলার এন্ডোর্স করতে হয়। (ভুলেও মানি এক্সচেঞ্জে এন্ডোর্স করাবেন না, ইন্ডিয়ান ভিসা সেন্টার মানি এক্সচেঞ্জের এন্ডোর্স এখন গ্রহণ করে না)।

যদি আপনি আমার মত বুদ্ধিমান হন তাহলে আপনি আপনার ক্রেডিট কার্ড নিয়ে চলে যাবেন ব্যাংকে, যেয়ে অফিসারকে ভাব নিয়ে চাবায় চাবায় বলবেন আমি অ্যামেরিকায় ঘুরতে যাবো, আমার কার্ডটা এন্ডোর্স করে দেন। ওই অফিসার আপনার কাছে এক টাকাও চাইবে না, বিনামূল্যে আপনার ক্রেডিট কার্ড এন্ডোর্স করে দিবে। ওনাকে কোন ফি দিতে হবে না, আপনার ক্রেডিট কার্ডের অ্যাকাউন্টে একটা পয়সা না থাকলেও সমস্যা নাই। আর যাদের ক্রেডিট কার্ডও নাই, ১২/১৩ হাজার টাকাও এই মুহূর্তে নাই তারা বাবা/মা/ভাই/বোন (রক্ত সম্পর্কীয়) এর ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এর স্টেটমেন্ট জমা দিলেই হবে। ব্যাংকে ১৫ হাজার টাকা থাকলেই হবে। ব্যাংক স্টেটমেন্ট নিতে ১১৫ টাকা ফি দিতে হয়।

ব্যাস, এইবার আপনি রেডি। এইবার চেক করে নেন হাতের কাছে এই জিনিসগুলা আছে কিনা। (ভিসা অ্যাপ্লিকেশনের প্রিন্ট কপি, ন্যাশনাল আইডি/বার্থ রেজিস্ট্রেশনের কপি, কারেন্ট/ফোন বিল, স্টুডেন্ট হলে কলেজ/ইউনিভার্সিটির আইডি, পেশা হলে এনওসি+আইডি/ভিজিটিং কার্ড এর ফটোকপি, এন্ডোর্সমেন্ট পেজটার ফটোকপি, পাসপোর্ট এর ইনফরমেশন পেজের কপি।)

যদি সব রেডি থাকে তাহলে সরাসরি চলে যান এই লিংকে। এখানে যেয়ে আপনার সব ইনফরমেশন দিবেন। তারপর একটা ঘরে লেখা আসবে ‘Walk In/E-Token’; যেহেতু আমরা দালাল ধরে ই-টোকেন নেইনি তাই দিব “Walk In“। এরপর কন্টিনিউ বাটনে চাপ দিলে দেখাবে ৬১৮ টাকা ফি (৬০০+১৮ টাকা প্রসেসিং)। এরপর কার্ডে পে করে দেবেন। কার্ড না থাকলে বিকাশ/রকেট দিয়েও পে করতে পারবেন। অনেকেই এটা জানেন না, পরে ভিসা সেন্টারে যেয়ে আশেপাশের দোকান থেকে ফি জমা দেন। কোন দোকানে ৬৭০ রাখে, কোন দোকানে ৬৫০ টাকা রাখে। বাসায় বসে আপনিই যখন পারেন তখন ৪০ টাকা বেশি দেয়ার দরকারটা কী? আর দোকানে যেয়ে তাড়াহুড়ারই বা দরকারটা কী? (পে করার পর ফোনে একটা ম্যাসেজ আসবে আর পেমেন্ট এর একটা সফট কপি আসবে মেইলে, ওইটা প্রিন্ট করানোর দরকার নাই, দেখতে চাইবে না কেউ।)

এবার একদম নিজের অভিজ্ঞতাঃ
কাগজ-টাগজ নিয়ে চলে গেলাম শ্যামলী আইভ্যাকে সকাল ৮ টায়। যাওয়ার পর লাইন ধরলাম, এক ঘন্টা পরে ভিতরে ঢুকতে দিল, ঢুকানোর সময় হাতে একটা প্রিন্টেড কাগজ নাম্বারসহ। ভিতরে যেয়ে আরো ১৫ মিনিট বসলাম, কফি খেলাম (কফি, চা, রোল, বার্গার সবই আছে, নাম ২০ টাকা, ৪০ টাকা), এরপর সিরিয়াল ধরে ডাক দিল। জিজ্ঞেস করল কেন যাবেন? বললাম ঘুরতে। ব্যাস ওই ওইটুকুই। পাশের কাউন্টারে অবশ্য বন্ধুকে জিজ্ঞেস করছে কোথায় যাবেন, অনেকে আবেগ দেখায় বলে ফেলেন কাশ্মীর যাব, বলবেন না এইটা; আপনার ভিসা দরকার এখন, ভিসা পাওয়ার পর কাশ্মীর যান নাকি উত্তর প্রদেশ যান সেইটা আপনার ব্যাপার, ওদের সামনে এমন কিছুই বলবেন না যাতে ওনারা এখন নেগেটিভ চিন্তা করে, কাশ্মীর সিকিম এগুলা ইন্ডিয়ার খুব স্পর্শকাতর জায়গা, এদের নাম না নেয়াই ভালো।

এরপর একটা স্টিকার লাগায় দিয়ে আপনাকে একটা টোকেন ধরায় দিবে যেখানে লেখা থাকে কবে আপনার পাসপোর্ট ওনারা ফেরত দিবেন। পাসপোর্ট ওনারা রেখে দিলেই যে ভিসা পাবেন সেটা ১০০% শিওর না, কিন্ত ৯৭% শিওর। আপনি ফর্মের ভিতরে বড় সড় কোন ভুল না করলে ওনারা ভিসা দিয়ে দিবে।

যেদিন পাসপোর্ট ফিরায় দেয়ার কথা সেদিন গেলেই যে পাবেন তা শিওর না। এজন্য চলে যান এই লিংকে। এখানে অ্যাপ্লিকেশন আইডি আর পাসপোর্ট নাম্বার দিলেই দেখাবে আপনার ভিসার অবস্থা কী। যদি ১০ তারিখ দেয়ার কথা লেখা থাকে তাহলে ১০ তারিখ এই চলে যাবেন না। চেক করবেন। যদি দেখেন ভিসা স্ট্যাটাস প্রসেসিং দেখাচ্ছে তাহলে যাওয়ার দরকার নাই। যদি প্রসেসড দেখায় তাহলে বিকালের দিকে যাবেন। ৩.৩০-৫.৩০ পর্যন্ত ওনারা ফেরত দেয়ার কাজগুলা করেন।

অফটপিকঃ

  • ভিসা সেন্টার এ ফর্ম জমা নেয় ৮-১২.৩০, ৭ টায় যেয়ে লাইনে দাড়ালে কাজ সারতে পারবেন ৮.৩০ টার মধ্যে। ৮ টায় গেলে ১১ টা বাজবে। আর ১০ টার দিকে না যাওয়াই ভালো, পরে লাইনে দাঁড়ায় থাকবেন দুই ঘন্টা তারপর শুনবেন আজকের মত বন্ধ।
  • পাসপোর্ট ফেরত দেয় ৩.৩০-৫.৩০, সকালে যেয়ে হাত পা ধরে কাঁদলেও দিবে না, ফেরত আনার জন্য বিকালের দিকেই যান।
  • মনে রাখবেন দরকার আপনার, তাই বিনয়ের অবতার হয়ে থাকবেন, কারো সাথে যেয়ে অযথা রাগারাগি করবেন না। কোন কারণ ছাড়াই ওরা আপনার ফর্ম রিজেক্ট করে দিতে পারে।
  • ব্যাগ নিয়ে যাবেন না, রাখার জায়গা নাই।
  • পোর্ট অফ এন্ট্রি/পোর্ট অফ এক্সিট নিয়ে অনেকে টেনশনে ভোগেন, যা ইচ্ছা তা দিতে পারেন ওখানে, সমস্যা নাই এখন। এখন সবার জন্য সব পোর্ট উন্মুক্ত।
  • যদি কাউন্টারে বলে আহ হা ওই কাগজ তো লাগত, বলবেন ‘সরি, আনি নি ওইটা’, বলতে যাবেন না “ওইটা কেন লাগবে, এইটা দিছি না? এইটা দিলেই তো হয়”, মোট কথা তর্ক করবেন না।
  • কিভাবে সাজাবেন তা টেনশনের দরকার নাই। কাগজ গুলা শুধু নিয়ে যাবেন হাতে বা ফাইলে, ওইখানে বড় ব্যানার টানানো আছে কিভাবে কাগজ সাজাবেন তা লেখা আছে, ওইভাবে সাজিয়ে রাখবেন, কাউন্টারে যেয়ে কাগজ গুলা দিলে ওরাই স্ট্যাপল করে নিবে। (কিন্ত অবশ্যই কাগজ সাজিয়ে দিবেন।)

এই হল ইন্ডিয়ান ভিসা নিয়ে আমার অভিজ্ঞতা এবং হালকা পাতলা উপদেশ। ভিসা পেতে আমার খরচ হল মোট ৬১৮ টাকা, ব্যাস এইটুকুই। দালাল দিয়ে আপনি করাতে পারেন, সেক্ষেত্রেও আপনার লাইন ধরতে হবে, মাঝ দিয়ে দেড় থেকে দুই হাজার টাকা এক্সট্রা দিতে হবে (আরো বেশিও লাগতে পারে)। নিজের গাটের পয়সা খরচ করবেন কেন যেখানে আপনি ঘরে বসেই শান্তি মত সব করতে পারেন।

আর যারা এখনো বলেন যে ভিসা অ্যাপ্লিকেশন করতে কষ্ট, এই ঝামেলা সেই ঝামেলা; তারা আশা করি বুঝবেন এইসব আসলে বানানো কথা। যদি ইন্ডিয়া ঘুরতে যাবার ইচ্ছা থাকে তাহলে মানুষের কথায় কান না দিয়ে ভিসা অ্যাপ্লিকেশন করতে নিজেই বসে যান।

শুভকামনা…। (শাদনান মাহমুদ নির্ঝর)
https://blog.bdnews24.com/shadnanm/232209/

গ্রামীণফোনে যৌন হয়রানি ও সমকামিতায় উৎসাহ!

গ্রামীণফোনের সিডিএম শাখার একজন শীর্ষ কর্মকর্তা এডমিনের ট্রেনিং শাখার এক নারী কর্মকর্তার রূপ-গুণে মুগ্ধ হন। সিডিএম শাখার ওই কর্মকর্তা ছিলেন বিবাহিত। আবার ট্রেনিং শাখার ওই নারী কর্মকর্তাও ছিলেন বিবাহিত। বিষয়টি জানার পরও ওই নারী কর্মকর্তাকে অনৈতিক সম্পর্কের প্রস্তাব দেন ওই কর্মকর্তা। ওই নারী কর্মকর্তা এমন আবেদন প্রত্যাখ্যান করেন। এরপরই তার উপর খড়গ নেমে আসে। কারণে অকারণে তার ডিউটি টাইম নির্ধারণ করা হয় সন্ধ্যার পর থেকে।

রাতে অফিসে ওই নারী কর্মকর্তার ওপর চলে বিভিন্ন ধরনের মানসিক নির্যাতন। এতেও ওই নারী কর্মকর্তা দমে যাননি। একপর্যায়ে তাকে বরিশাল আঞ্চলিক অফিসে বদলি করা হয়। স্বামী-সন্তান ঢাকায় ফেলে বরিশাল যেতে চাননি তিনি। ফলে একটা পর্যায়ে বাধ্য হয়েই ওই নারী কর্মকর্তা চাকরি থেকে ইস্তফা দেন। এতে তিনি সব ধরনের আর্থিক সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হন। গ্রামীণফোন থেকে এভাবে নির্যাতনের মুখে চাকরি ছেড়ে আসা একজন নারী কর্মকর্তা এ সব কথা বলেন। শুধুই একটি ঘটনা নয়, এমন অহরহ যৌন নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোনে।

আবার গ্রামীণফোনে একশ্রেণির কর্মকর্তা আছেন যারা নারী কর্মীদের কাছ থেকে ‘ভাইয়া’ ডাক শুনতে পছন্দ করেন। কারণে অকারণে তাদের সঙ্গে আড্ডা দিতে চান। দুপুরে বা বিকালে এক সঙ্গে খাবারের অফারও দেয়া হয়। বিভিন্ন ধরনের আড্ডায় বড় কর্মকর্তাদের মনোরঞ্জন না করতে পারলে, তাকে পরবর্তীতে ডিউটি টাইম পরিবর্তন করে রাতে দেয়া হয়। এতে বিপাকে পড়ে অনেকে নারীই চাকরি ছাড়েন বা ‘ভাইয়া’দের খুশি করার চেষ্টা করেন। এ ছাড়া রাতের বেলা গ্রামীণফোনের কোনো অনুষ্ঠান থাকলে সেখানে নারী কর্মকর্তাদের উপস্থিত হতে অনেকটাই বাধ্য করা হয়। অতিথিদের সঙ্গে নারী কর্মকর্তাদের মদপান করতেও উত্সাহিত করের ঊর্ধ্বতনরা।

ঢাকার বাইরে আঞ্চলিক অনুষ্ঠান, সভা ও প্রচারণার অংশ হিসাবে সুন্দরী নারী কর্মকর্তাদের বেশিরভাগ সময় সেখানে পাঠানো হয়। ওইসব স্থানে হোটেলে রাত্রিযাপনে গ্রামীণফোনের শীর্ষ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে নারীদের বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে। বিশেষ করে বিদেশ থেকে ঊর্ধ্বতনরা এলে তাদের সঙ্গে অফিসিয়াল প্রোগ্রামের নাম করে ঢাকার বাইরে পাঠানো হয় সুন্দরী নারীদের।

কিছুদিন আগেও এক নারী কর্মীকে ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তার সঙ্গে কক্সবাজার পাঠানো হয়। সেখানে ওই কর্মকর্তা একটি বিলাসবহুল হোটেলে নারী কর্মকর্তাকে রাতে সুইমিং করার প্রস্তাব দেয়। ওই নারী কর্মকর্তা সুইমিং কস্টিউম পরে আসলেও তাতে ওই কর্মকর্তার মন ভরেনি। তিনি ওই নারীকে আরো শর্ট পোশাক পরে আসার প্রস্তাব দেন। বাধ্য হয়ে ওই নারী কর্মকর্তা সেদিন রাতে শর্ট পোশাক পরে সুইমিং করেন। ঢাকায় ফিরে ওই নারী চাকরি থেকে ইস্তফা দেন।

এভাবে মানসিক নির্যাতন সহ্য করেই অনেক নারী এখনো চাকরি করে যাচ্ছেন গ্রামীণফোনে। আর যাদের উপর নির্যাতনের পরিমাণ বেশি তাদের অনেকেই চাকরি ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়েছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অফিস চলাকালীন সময়ে গ্রামীণফোনের নারী কর্মকর্তাদের ড্রেস কোড মেনে চলতে হয়। বিশেষ করে পশ্চিমা ঘরানার পোশাক বাধ্যতামূলক করা হয় সুন্দরী নারী কর্মকর্তাদের ক্ষেত্রে। যদিও গ্রামীণফোনে এ ধরনের ড্রেস কোড নেই। কিন্তু গ্রামীণফোনে তথাকথিত শীর্ষ কর্মকর্তারা তাদের মনবাঞ্ছা চরিতার্থ করতে, ইচ্ছা করেই নারী কর্মকর্তাদের ওপর প্রগতিশীলতার নামে ড্রেসে কোড চাপিয়ে দেয়। আবার রাজধানী বা রাজধানীর বাইরে কোনো অনুষ্ঠানে নারী কর্মকর্তাদের পশ্চিমা ধাঁচের ড্রেস কোড থেকেও ছোট পোশাক পরতে বাধ্য করা হয়। নারী কর্মকর্তাদের বলা হয়, ‘কর্পোরেট কালচারে এ সব মেনে চলতে না পারলে এখানে চাকরি করা যাবে না।’

অনুসন্ধানে জানা গেছে, বাংলাদেশে সমকামিতা নিষিদ্ধ হলেও গ্রামীণফোন বিভিন্নভাবে সমকামিতাকে উত্সাহিত করছে। সমকামিতার পক্ষে তারা বিভিন্ন সভা-সেমিনারে অর্থ সহায়তা দিয়ে থাকে। সম্প্রতি গ্রামীণফোনের অর্থায়নে নির্মিত সমকামিতা নিয়ে একটি নাটক একটি টেলিভিশন চ্যানেল প্রচার করে বিপাকে পড়ে। পরে বাধ্য হয়ে ওই টেলিভিশন চ্যানেলটি নাটক প্রত্যাহার করে ক্ষমা চাইতে বাধ্য হয়।

জানা গেছে, এর মধ্যে সমকামিতার পক্ষে একটি ঘরোয়া অনুষ্ঠানেও অর্থ দিয়েছে গ্রামীণফোন। মুসলিম অধ্যুষিত বাংলাদেশে এই ধরনের বিকৃত রুচির বিষয়গুলো ছড়িয়ে দিয়ে সামাজিক অবক্ষয়ের কাজটিও গোপনে করে যাচ্ছে গ্রামীণফোন।

সূত্র: ইত্তেফাক